বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৫:০৩ পূর্বাহ্ন

৭ মার্চের ভাষণ আজও গায়ে কাঁটা দেয়: হান্স হার্ডার

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ডয়চে ভেলের কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকার দিয়েছেন জার্মানির হাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের দক্ষিণ এশিয়া ইন্সটিটিউটের প্রধান ডঃ হান্স হার্ডার৷ সাক্ষাৎকারটি হুবুহু তুলে ধরা হলো।

ডয়চে ভেলে: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষে রয়েছি আমরা৷ বাংলাদেশ সরকার দেশে ও অন্যান্য দূতাবাসে তা উদযাপনে নানা আয়োজন করেছে৷ আপনার অনুভূতি কেমন?

ড. হান্স হার্ডার: বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ নিয়ে যে এত হইচই হচ্ছে সব জায়গায়, সেটা খুবই স্বাভাবিক৷ কারণ বাংলাদেশ স্বাধীন রাষ্ট্র হবার পেছনে বঙ্গবন্ধুর বিরাট বড় ভূমিকা ছিল বলে আমি মনে করি৷ এমনকি এটা বলা যেতেই পারে যে শেখ মুজিবের মতো সম্ভ্রান্ত, জোরালো, সাহসী জননায়ক না থাকলে বাংলাদেশ সেই সময় স্বাধীন হতে পারতো কি না, তা সন্দেহের বিষয়৷

এবছর যেহেতু তাঁর জন্মশতবর্ষ, সেই উপলক্ষে বাংলাদেশে সরকারিভাবে নানা আয়োজন করা হয়েছে৷ এর মধ্যে অন্যতম আকর্ষণ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী৷ আপনি বিষয়টা কীভাবে দেখছেন?

এটা নিয়ে আমার মনে হয় আলোচনার অবশ্যই দরকার আছে৷ গভীরে যেতে হবে তার জন্য৷ এই ঘটনা নিয়ে আমি সহজ-সরল কোনো বক্তব্য দিতে পারব না৷ আপাতত এই বিষয়ে কথা না বলাই উচিত৷

জার্মানিতে কি বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ উদযাপন হওয়া উচিত, হলে কীভাবে? 

হওয়া উচিত৷ কিন্তু হবে কি না তা আমার জানা নেই৷ আমরা এখানে (হাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে) কিছু করছি না এখন পর্যন্ত৷ কিন্তু একদম কিছু করব না, তা এই মুহূর্তে জানি না৷ এখানে (জার্মানিতে) অনেক রাজনৈতিক পক্ষ আছেন, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সদস্যরা আছেন৷ তাঁরা নিশ্চয়ই কিছু না কিছু করবেন, কিন্তু আমার বিস্তারিত জানা নেই সেবিষয়ে৷ কিন্তু জার্মানি ছাড়াও, বিশ্বের সব জায়গাতেই আমাদের বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন করা উচিত, কারণ আমি মনে করি তিনি একজন প্রতীক৷ শেখ মুজিব আজও অন্যায়ের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবার প্রতীক৷ আমি প্রায়ই ওনার বিখ্যাত সব বক্তৃতার লাইন মনে করি৷ যেমন ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম/ এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম”৷ রমনাতে ৭ মার্চের এই ভাষণ আজও আমাদের গায়ে কাঁটা দেয়৷ তাই আমি মনে করি শেখ মুজিবকে সাহসের প্রতিমূর্তি হিসাবে দেখা উচিত৷

একজন গবেষকের দৃষ্টিভঙ্গী থেকে আপনার কি মনে হয় বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কাজ করার এখনও আরো অনেক জায়গা আছে?

জায়গা নিশ্চয়ই আছে, কিন্তু সমালোচনারও জায়গা আছে৷ এইসব সমালোচনার জায়গা হয়তো এখন জন্মশতবার্ষিকীকে ঘিরে নাও করা যেতে পারে, এখানে সেটা মানানসই হবে না৷ কিন্তু বঙ্গবন্ধুকে দেখার অনেক ধরনের দৃষ্টিভঙ্গী থাকতে পারে, অনেক পরিপ্রেক্ষিত থাকতে পারে৷ এই দৃষ্টিভঙ্গীগুলির গভীরে গেলে বঙ্গবন্ধুকে শুধুই সাহসী রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব হিসাবে দেখতে পাব তা তো নয়, তখন অন্যান্য দিকগুলিও দেখব৷ এই দুই দৃষ্টিভঙ্গীর মধ্যে যে ব্যবধান রাখা দরকার, তা এখনকার পরিস্থিতিতে আমি দেখছি না৷

আপনার কাছে আজকের সময়ে বঙ্গবন্ধু গুরুত্বপূর্ণ কেন? 

এই সাহসী ব্যক্তিত্বকে মনে রাখা অবশ্যই উচিত৷ কারণ এই শেখ মুজিব সব ধরনের দলীয় রাজনীতির ঊর্ধ্বে, সব দলের রাজনীতির, রাজনৈতিক লবির হস্তক্ষেপের বাইরে৷ কোনো বিশেষ দলের নেতা হিসাবে নয়৷ আমরা যেন ওনাকে দেখি একজন অসম সাহসী ব্যক্তিত্ব হিসাবে৷ এভাবেই যেন ওনার স্মৃতিচারণ করা হয়৷

আপনি বাংলাদেশে গেলে সেখানে বঙ্গবন্ধুকে কোথায় খুঁজে পান?

আজকাল আমরা বাংলাদেশে শেখ মুজিবকে সর্বত্রই পাই৷ দেওয়ালে দেওয়ালে, রাস্তায় রাস্তায় তাঁকে দেখতে পাই৷ ওনার কথা না ভেবে থাকাই যায় না, কারণ এত প্রচার হচ্ছে ওনার নামে৷ এই প্রচারগুলো সব যে ঠিক তা নয়, কিন্তু সেটা অন্য আলোচনা৷ এখন সেটায় আমি যাচ্ছি না৷

আমাদের পাঠকদের জন্য বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে আপনার কোনো বিশেষ বার্তা আছে কি?

এই আনন্দ উপলক্ষে সবাইকে আমি আমার আন্তরিক শুভেচ্ছা জানিয়ে শেষ করতে চাই৷


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *