বৃহস্পতিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ১২:৫৮ অপরাহ্ন

‘বাংলা ভাষা বাদ দিয়ে ইংরেজি শেখার কোনো মানে নেই’

বিজয়ের অঙ্গীকার, সাংস্কৃতিক অধিকার স্লোগান নিয়ে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট প্রতিবারের ন্যায় এবারো ১৪ দিনব্যাপী একুশের অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করেছে। আজ শনিবার থেকে আগামী ২১ শে ফ্রেব্রুয়ারি পর্যন্ত চলবে এ কার্যক্রম। শনিবার বিকেল ৪টায় কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে এ অনুষ্ঠানমালার উদ্বোধন করেন বিশিষ্ট নাট্যব্যক্তিত্ব ফেরদৌসী মজুমদার।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, বাঙালিরা রক্তের বিনিময়ে সবকিছু অর্জন করেছে। এজন্য তাদেরকে স্মরণ করি। বাংলা ভাষা বাদ দিয়ে ইংরেজি শেখার কোনো মানে নেই। তাই বলে ইংরেজি শিখতে হবে না, তা বলছি না। সবার ঊর্ধ্বে বাংলাকে রাখতে হবে।
ফেরদৌসী মজুমদার আরো বলেন, একুশে আমাদের গর্ব, আমাদের অহংকার। আমরা যা চেয়েছি তাই পেয়েছি। তবে সহজে পাইনি। যুদ্ধ করে পেতে হয়েছে। আমাদের একুশে আজ আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে বিশ্বে উদযাপিত হচ্ছে। এজন্য আমরা সালাম রফিকের নিকট কৃতজ্ঞ।
অনুষ্ঠানে সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব মফিদুল হক বলেন, দেশে মানুষের শিক্ষার অধিকার সম্প্রসারিত হয়েছে। বাংলাদেশ আজ মাথা তুলে দাঁড়িয়েছে। বাংলাদেশ পৃথিবীর বুকে একটি আদর্শ, উন্নত রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠার পথে অগ্রসর হচ্ছে। অন্যদিকে দেখি এই বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক শক্তি আজও নানাভাবে তাদের দংশন অব্যাহত রেখেছে। কখনো প্রকাশ্যে, কখনো অপ্রকাশ্যে বা কখনো কৌশলে। এ সমস্ত কিছুর বিরুদ্ধে যদি আমরা সচেতন না হই, জাতির মুক্তিযুদ্ধের যে ভিত্তি সেটা যদি জোরদার না করি তাহলে আমাদের অর্জনগুলো আবারও বিফলে যেতে পারে।
অনুষ্ঠানে জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছের সভাপতিত্বে সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব মফিদুল হক, শিল্পী ফকির আলমগীর, ঝুনা চৌধুরী, কামাল বায়েজীদ, জোটের সাধারণ সম্পাদক হাসান আরিফ প্রমুখ বক্তব্য দেন।
সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট ইতিহাস ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির আলোকধারায় প্রতি বছরের ন্যায় এবারও ৮ থেকে ১৭ ফেব্রুয়ারি কেন্দ্রীয় শহিদ মিনার এবং ১৮ থেকে ২১ শে ফেব্রুয়ারি ধানমন্ডি রবীন্দ্র সরোবরে একুশের অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করেছে। রবিবার বিকেল সাড়ে ৪টায় কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে একুশের অনুষ্ঠানমালা শুরু হবে। এতে দলীয় সঙ্গীত, একক সঙ্গীত, দলীয় নৃত্য, দলীয় আবৃত্তি, একক আবৃত্তি, শিশু-কিশোর পরিবেশনা ও পথনাটক অনুষ্ঠিত হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *