বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ০৭:১০ অপরাহ্ন

‘গিলকে নিয়ে কথা বলছে গোটা বিশ্ব’

স্পোর্টস ডেস্ক,
দিনেশ কার্তিকের সঙ্গে শুবমান গিল। ছবি: বিসিসিআই।
মর্গ্যানের সঙ্গে জুটিতে ম্যাচ জিতিয়ে মাঠ ছাড়ছেন গিল। ছবি: বিসিসিআই।
শুবমান গিলের নান্দনিক ব্যাটিংয়ে মুগ্ধ ওয়েন মর্গ্যান বলছেন, এই তরুণের সঙ্গে ব্যাট করতে চান আবার। ২১ বছর বয়সী এই ব্যাটসম্যানকে কলকাতা নাইট রাইডার্সের অধিনায়ক হিসেবে দেখতে চান কেভিন পিটারসেন। কলকাতার অধিনায়ক যিনি, সেই দিনেশ কার্তিকের উপলব্ধি, গোটা বিশ্বই কথা বলছে গিলকে নিয়ে। কার্তিকের চাওয়া, প্রত্যাশার ভারে যেন নুয়ে না পড়েন দারুণ সম্ভাবনাময় এই ব্যাটসম্যান।

আইপিএলে শনিবার সানরাইজার্স হায়দরাবাদের বিপক্ষে কলকাতার জয়ে অপরাজিত ৭০ রানের ইনিংস খেলে ম্যাচ সেরা হয়েছেন গিল। ম্যাচে তার ব্যাটিং শেলি দেখে শুরু হয়েছে স্তুতির জোয়ার। তবে এই জোয়ার চলছে আসলে গত দুই বছর ধরেই।

২০১৮ অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে ম্যান অব দা টুর্নামেন্ট হয়েছিলেন গিল। ওই টুর্নামেন্ট চলার সময়ই আইপিএল নিলামে তাকে ১ কোটি ৮০ লাখ রুপিতে দলে নেয় কলকাতা।

আইপিএলের অর্থের অঙ্ক আর প্রত্যাশার চাপে অনেক তরুণেরই ভেঙে পড়ার নজির আছে। তবে গিল ব্যতিক্রম। ২০১৮ আইপিএলে তিনি প্রায় ৩৪ গড়ে করেছিলেন ২০৩ রান, গত আসরে করেছিলেন প্রায় ৩৩ গড়ে ২৯৬ রান। মূলত টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান হলেও ওই দুবারই তাকে ফিনিশারের ভূমিকা পালন করতে হয়েছে। এবার সুযোগ পাচ্ছেন টপ অর্ডারে ব্যাট করার। শুরুটাও হলো বেশ ভালো।

আইপিএল ছাড়াও গিল তার প্রতিভার স্বাক্ষর রেখেছেন ভারতের ঘরোয়া ক্রিকেটে ও ‘এ’ দলের হয়ে। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ২১ ম্যাচেই করে ফেলেছেন ৭ সেঞ্চুরি, ব্যাটিং গড় ৭৩.৫৫। লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে ব্যাটিং গড় ৪৫.৬০।

ব্যাটিংয়ের নান্দনিকতার পাশাপাশি মাঠের চারপাশে শট খেলা আর পরিণত মস্তিষ্ক, সব মিলিয়েই গিলকে নিয়ে ভারতীয় ক্রিকেটের আশা অনেক। এবার টুর্নামেন্ট শুরুর আগে কলকাতার কোচ ব্রেন্ডন ম্যাককালাম জানিয়ে দেন, দলের লিডারশিপ গ্রুপের একজন হবেন ২১ বছর বয়সী গিল। তার ওপর সবার আস্থার বড় প্রমাণ সেটি।

মর্গ্যানের সঙ্গে জুটিতে ম্যাচ জিতিয়ে মাঠ ছাড়ছেন গিল। ছবি: বিসিসিআই।

মর্গ্যানের সঙ্গে জুটিতে ম্যাচ জিতিয়ে মাঠ ছাড়ছেন গিল। ছবি: বিসিসিআই।
মর্গ্যানের কথায়ও উঠে এলো সেটি। হায়দরাবাদের বিপক্ষে দলের জয়ে গিলের সঙ্গে ৯২ রানের ম্যাচ জয়ী অবিচ্ছিন্ন জুটি গড়েছেন মর্গ্যান। ইংল্যান্ডের বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক ম্যাচ শেষে গিলের প্রশংসায় ছিলেন পঞ্চমুখ।

“ সত্যি বলতে, তাকে খুব বেশি কিছু বলতে হয়নি আমার। নিজের খেলা খুব ভালো বোঝে সে। তার ব্যাটিং দেখা চোখের জন্য শান্তি, ব্যাট সুইং ভালো। অলস একটা সৌন্দর্য আছে, দেখার জন্য দারুণ। খুবই ভালো ছেলে সে, শেখার জন্য খুবই ক্ষুধার্ত। তার সঙ্গে আবার ব্যাট করতে ভালো লাগবে আমার। আমার মনে হয়, সব সাফল্যই তার প্রাপ্য।”

ম্যাচ চলার সময়ই মুগ্ধ কেভিন পিটারসেন টুইট করেন, “কলকাতা নাইট রাইডার্সের অধিনায়ক হওয়া উচিত তার… শুবমান গিল।”

গিলকে নিয়ে উচ্ছ্বসিত কার্তিকও। তবে নেতৃত্ব দেওয়া বা এখনই চাপে জর্জর করে যাতে না ফেলা হয়, সেটি নিয়েও সতর্ক কলকাতার অধিনায়ক।

“ তরুণদের ভালো করতে দেখা দারুণ। আমি চাই, ক্রিকেটের পথ ধরে গিলের এই ভ্রমণ উপভোগ্য হোক। গোটা বিশ্ব কথা বলছে তাকে নিয়ে। এজন্যই আমি নিশ্চিত করতে চাই, সে যেন কোনো চাপ ছাড়া সামনে এগিয়ে যেতে পারে।”

গত বছর ভারতের হয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটেও অভিষেক হয়ে গেছে গিলের। তবে নিউ জিল্যান্ডে দুটি ওয়ানডে খেলে করতে পেরেছেন কেবল ১৬ রান। টেস্ট স্কোয়াডেও জায়গা পেয়েছেন, তবে খেলার সুযোগ হয়নি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *