আজাদি মার্চ: বৃষ্টি ঠাণ্ডাসহ বৈরী আবহাওয়ায় অনড় বিক্ষোভকারীরা

পাকিস্তানে ব্যাপক বৃষ্টিপাত ও রুক্ষ আবহওয়া সত্ত্বেও ইমরান খানবিরোধী আজাদি মার্চের বিক্ষোভকারীরা অনড় রয়েছেন। নিজেদের অবস্থান কর্মসূচি থেকে তারা একটু নড়ছেন না বলেও জানিয়েছেন। মুলতান থেকে আজাদি মার্চে অংশ নিয়েছেন ৩৫ বছর বয়সী মুহিজুর রহমান। তিনি বলেন, খারাপ আবহাওয়া আমাদের দমিয়ে রাখতে পারবে না।
ডন অনলাইনের খবরে বলা হয়েছে, গত এক সপ্তাহ ধরে ইসলামাবাদে ক্যাম্প স্থাপন করে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের অপসারণ দাবিতে বিক্ষোভ করে যাচ্ছেন তারা।
বিক্ষোভকারীরা তাদের অস্থায়ী ক্যাম্পের ভেতর নামাজ আদায় করছেন। মুহিজুর বলেন, বৃষ্টি শুরু হলে তারা সমস্যা পড়ে গেছেন। কিন্তু যেখানে ছিলেন, সেখানেই রয়ে গেছেন। কষ্ট হওয়া সত্ত্বেও পিছু হটবেন না বলে তিনি জানিয়েছেন।
বৃষ্টি নামলে মাইক থেকে ঘোষণা করা হয়, যারা তাঁবুর নিচে দাঁড়াতে পারছেন না, তারা যেন ভূগর্ভস্থ মেট্রো স্টেশনে গিয়ে আশ্রয় নেন। অনেকেই সেখানে চলে গিয়েছেন।
এরপর ভূগর্ভস্থ মেট্রো স্টেশনে বৃষ্টি কমে যাওয়ার অপেক্ষায় রয়েছেন একটা বড় সংখ্যক বিক্ষোভকারী। সঙ্গে তাদের লাগেজ ও রান্নার সরঞ্জামও নিয়ে যান।
লোরখানা থেকে আসা আবদুর রাজ্জাক আবরো বলেন, নিপীড়নের বিরুদ্ধে নিজেদের ভূমিকা রাখার সিদ্ধান্ত নেয়ার পর লোকজনকে মারাত্মক বিপাকে পড়তে হয়েছে। বৃষ্টি আমাদের জন্য আশীর্বাদ হয়ে এসেছে, কাজেই আমরা সরে যাব না।
নির্বাচনে জালিয়াতির মধ্য দিয়ে ক্ষমতায় আসা একজন প্রধানমন্ত্রীকে পদত্যাগে বাধ্য করতে আমাদের দায়িত্ব রয়েছে বলে জানান তিনি।
তাপমাত্রা কমে যাওয়ায় প্রতিবাদকারীরা বিপাকে পড়ে গেছেন। বিশেষ করে যারা এইচ-৯ ও জি০৯ কাশ্মীর মহাসড়কে তাঁবু গেড়েছেন, বৃহস্পতিবার তারা বেশি কষ্টে পড়েছেন।
আজাদি মার্চে অংশগ্রহণকারীদের অনেকে বৈরী আবহাওয়ার কারণে ক্যাম্পেই অবস্থান করেন। জমিয়তে উলামা-ই-ইসলাম তাদের জন্য তাঁবুর ব্যবস্থা করেছে। কিন্তু বিক্ষোভকারীদের তুলনায় সেই সংখ্যা ছিল কম।
খলিলুর রহমান নামের একজন বলেন, দল আমাদের জন্য তাঁবুর ব্যবস্থা করেছে। কিন্তু বাস্তবিকভাবে এত বিপুল সংখ্যক লোকের জন্য পর্যাপ্ত তাঁবুর আনা খুবই কঠিন। কাজেই করাচি কোম্পানি থেকে এই প্লাস্টিকের শিটগুলো আমরা কিনে এনেছি।
বৃষ্টি ও ঠাণ্ডা আবহাওয়ার কারণে খুব কম লোকই মহাসড়কে বের হয়েছেন। বিক্ষোভকারীরা তাদের ক্যাম্প থেকে বের হননি।
জমিয়ত নেতা মাওলানা ফজলুর রহমান আগের তুলনায় ঘণ্টাখানেক আগে বক্তব্য দিয়েছেন। আবহাওয়া পরিস্থিতির কারণেই তাকে এমন সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে।
এসময় দায়িত্বশীলতার জন্য দলীয় কর্মীদের তারিফ করেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares